Show Categories

বেবি ওয়াকার; সন্তানের জন্য কতটা নিরাপদ ?

বেবি ওয়াকার

মিষ্টি সোনামণি শুয়ে শুয়েই হাত পা ছুড়তে চায় প্রবল উৎসাহে। মাঝে মাঝে দাঁড়িয়ে যায় জানালার কার্নিশ বা খাটের কাঠ ধরে। মুখে একটা মিষ্টি হাসি নিয়ে হাঁটতেও চায় দু-এক পা। এইসব দেখে কি আর কোন বাবা-মার তর সয়! সে কবে হাঁটতে শিখবে পুরোপুরি! কবে হাঁটি হাঁটি পা পা করে একটু দূর থেকে এসে ঝাঁপিয়ে পড়বে বুকে! ইশ! আর অপেক্ষা করা যাবে না, দ্রুত শিখিয়ে ফেলতে হবে হাঁটা; এমন ভাবেন তো সব বাবা-মা’ই। হাতে ধরে হাঁটা শেখাতে চাচ্ছেন, টুকটাক দাঁড়াতে সাহায্য করছেন। কিন্তু দ্রুত তো হচ্ছে না! কী করা যায়? ইন্টারনেট ঘেঁটে কিংবা দু-একজনের কাছ থেকে শুনলেন বেবি ওয়াকার-এর কথা। আর ভাবলেন, বাহ! বেশতো! যাই নিয়ে আসি।

বাচ্চার জন্য অনেক খেলনাই তো আনেন। আনলেন না হয় একটা বেবি ওয়াকার’ও। কিন্তু আনার আগে একটু সময় খরচ করে জেনে নিন না বেবি ওয়াকার সম্পর্কে বিশেষজ্ঞরা কী বলছেন। বাচ্চার হাঁটায় আসলে কতটা সাহায্য করে এই বেবি ওয়াকার! নাকি উল্টো ক্ষতি করে! চলুন জেনে নেয়া যাক।

বেবি ওয়াকার কি আসলেই শিশুকে হাঁটা শিখতে সহায়তা করে? গবেষণা কী বলছে?

শিশুদের উন্নয়ন একটি ধারাবাহিক ও প্রাকৃতিক প্রক্রিয়া। তারা হাত-পা ছুড়তে শিখবে, হামাগুড়ি দিতে শিখবে, কিছু ধরে দাঁড়াতে শিখবে, হাঁটতে চেষ্টা করবে, হাঁটতে গিয়ে  পড়ে যাবে, হালকা ব্যথা পাবে ও একসময় হাঁটতে শিখে যাবে। এই স্বাভাবিক প্রক্রিয়াকে স্বাভাবিকভাবে করতে দিলেই শিশুর উন্নয়ন পরিপূর্ণ হবে। এই কাজগুলো করার ফলেই তার হাড়, পেশী সমৃদ্ধ হবে ও নিজের উপর নিয়ন্ত্রণও সে ভালোভাবেই নিতে পারবে। অপরপক্ষে বেবি ওয়াকার ব্যবহারে তার হাড়, পেশী সমৃদ্ধতো হবেই না, হতে পারে ক্ষতিও। ইন্ডিয়ান অ্যাসোসিয়েশন অব পেডিয়াট্রিকসের গবেষণা বলছে, বেবি ওয়াকার আপনার সন্তানের এই স্বাভাবিক প্রক্রিয়াকে বাধাগ্রস্থ করে। পেশী ও হাঁড়ের গঠন সমৃদ্ধ হয় না, বেবি ওয়াকার ব্যবহারের ফলে শিশু নিজের শরীরের নিয়ন্ত্রণ করাও আয়ত্ত করতে পারে না।

আমেরিকান অ্যাসোসিয়েশন অব পেডিয়াট্রিকস-এর ২০০৮ সালের একটি প্রতিবেদনে বেবি ওয়াকারকে ডেঞ্জারাস চয়েস বলে আখ্যায়িত করা হয়েছে। বিশ্ববিখ্যাত শিশু স্বাস্থ্য বিষয়ক জার্নাল পেডিয়াট্রিকস-এর এক জরিপে দেখা গেছে, আমেরিকায় গত ১৫ বছরে ২ লাখ ৩০ হাজার শিশু ওয়াকার দুর্ঘটনার শিকার হয়ে চিকিৎসা নিতে এসেছে। এর মধ্যে বেশিরভাগই মাথায় ও ঘাড়ে বড় ধরণের আঘাত পেয়েছে, যা তাদের দীর্ঘমেয়াদী শারীরিক সমস্যার দিকে ঠেলে দিয়েছে। এর প্রেক্ষিতে ২০১০ সালের পর আমেরিকাতে বেবি ওয়াকার নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

২০০৪ সালে কানাডাতে রীতিমত শাস্তি ও জরিমানার বিধান রেখেই নিষিদ্ধ করা হয় বেবি ওয়াকার। কানাডাতে যদি কেউ বেবি ওয়াকার বিক্রি করে তাকে জরিমানা হিসেবে ১ লক্ষ কানাডিয়ান ডলার গুনতে হবে অথবা কারাবাস করতে হবে ৬ মাসের।

বেবি ওয়াকার-এর আরো কিছু ক্ষতিকর দিক

মাংসপেশী ও হাড় সবল হয় না

ওয়াকারে চাকা লাগানো থাকার ফলে সেটা অনেকটা আপনাআপনিই বা সহজেই চলে। ফলে উঠে দাঁড়ানো, এক কদমের পর আরেকটা কদম ফেলার যে পরিশ্রম এই পরিশ্রমটা শিশুর করা লাগে না। এর কারণে শিশুর শারীরিক গঠন পরিপূর্ণ হয় না। তাছাড়া শরীরের গঠনেও ব্যালেন্স থাকে না। ওয়াকার ব্যবহারের ফলে দেখা যায় পায়ের নিচের অংশের পেশী কিছুটা শক্তিশালী কিন্তু সেই তুলনায় পায়ের মাসল ততটা শক্তিশালী হয় না। অনেক শিশু অলসও হয়ে পড়ে। উল্টো দিকে এক গবেষনায় দেখা গেছে ওয়াকার ব্যবহার না করা শিশুদের পেশীশক্তি ওয়াকার ব্যবহার করা শিশুদের চেয়ে অনেক বেশি পরিপূর্ণও হয়ে থাকে।

শারীরিক বৃদ্ধি ও মোটর স্কিল ক্ষতিগ্রস্থ হয়

একটা নির্দিষ্ট বয়সের পরে শিশুদের মেরুদন্ড শিশুদের শরীরের ভার বহন করার জন্য উপযুক্ত হয়। এই সময়টার আগে যদি আপনি আপনার সন্তানের মেরুদন্ডকে সেই ভার বহন করার জন্য বাধ্য করেন তাহলে ক্ষতিতো হবেই। অনেকক্ষেত্রে ১ বছরেরও কম বয়সি বাচ্চাকে বেবি ওয়াকার দেয়া হয়, এর প্রভাবটা পড়ে শিশুর মেরুদণ্ডে। ফলে হতে পারে দীর্ঘমেয়াদী ক্ষতি। শিশুরা আঙ্গুল দিয়ে মাটিতে ধাক্কা দিলেই ওয়াকার চলা শুরু করে। ফলে ওয়াকার ব্যবহার করলে শিশু শরীরের নিয়ন্ত্রণ নিতে শিখে না। পা দেখা না যাওয়ায় পা কীভাবে ফেলবে, কোথায় ফেলবে সেই ভাবনাটা শিশুর মাঝে আসে না।

হতে পারে মারাত্মক দুর্ঘটনা

ওয়াকারে চাকা থাকার ফলে ওয়াকারের গতি শিশু নিয়ন্ত্রণ করতে পারে না। জোরে একটা ধাক্কা লাগলেই তা দেয়ালে গিয়ে আঘাত করতে পারে কিংবা পড়ে যেতে পারে সিঁড়ি দিয়ে। ফলে মাথায় ও ঘাড়ে আঘাত পেতে পারে যেকোন সময়। আঘাত পেতে পারে আঙ্গুল কিংবা গোড়ালিতেও।

সন্তানের প্রথম কথা বলা কিংবা নিজে নিজে প্রথম কদম দিতে পারা অনেক বেশি স্পেশাল। এই সময়টার জন্য অধীর অপেক্ষা থাকে আমাদের। কিন্তু স্বভাবিক নিয়মের বাইরে গিয়ে একটু বেশি তাড়াহুড়ো করে আমরা যেন সন্তানের ক্ষতি করে না বসি সে দিকেও খেয়াল রাখতে হবে। আগামী ব্লগে আমরা ওয়াকারের বিকল্প ও শিশুকে হাটতে শেখায় সাহায্য করার অনেক টিপস সম্পর্কে জানবো।

তথ্যসূত্র- Wikipedia \ CPSC \ Nationwidechildrens \ NCBI \

আপনার সন্তানকে বিজ্ঞানের প্রতি আগ্রহী করে তুলতে তাকে বিজ্ঞানবাক্স দিন।

375 total views, 1 views today

What People Are Saying

Facebook Comment