শিশুর অসুস্থতা! স্কুল মিস দেয়ার অজুহাত নাকি সত্যি!

শিশুর অসুস্থতা

“আম্মু পেট ব্যথা” সকাল সকাল আপনার দুষ্টু সোনামণি পেট ধরে এমন কথা বলে বিছানায় শুয়ে রইলো। আপনি ভাবলেন-পেট ব্যথা, থাক আজকে আর স্কুলে যাওয়ার দরকার নাই! কিন্তু স্কুল যাওয়ার সময়টা কেটে যাওয়ার পরই দেখলেন সে খেলছে, দৌঁড়াদৌঁড়ি করছে, টিভি দেখছে। তাকে দেখে বোঝারই উপায় নেই সকালেই তার অনেক পেট ব্যাথা ছিলো! কয়েকদিন পর আবারো একদিন সকালে সে একই ভাবে বলে উঠলো-আম্মু মাথা ব্যাথা! আপনি ভাবলেন, অন্যদিনের মতোই অজুহাত! কিন্তু এবার যদি সত্যি সত্যি তার মাথা ব্যাথা হয়? সেক্ষেত্রে কী করবেন? কীভাবে বুঝবেন, কোনটা স্কুল মিস করার অজুহাত আর কোনটা সত্যি সত্যি শিশুর অসুস্থতা । চলুন আজকে তাই জেনে নিই!

শারীরিক অবস্থা ও ক্ষুধা

সকাল সকাল পেট ব্যাথা, মাথা ব্যাথা, অল্প জ্বর বা অন্য কোন ধরণের অসুখ হলে কিন্তু তার মেজাজ ও মন কিছুটা খারাপ থাকবে। শারীরিক অসুস্থতার হলে স্বাভাবিক রুটিনের কিছুটা পরিবর্তন লক্ষ করা যাবে। সত্যি সত্যি যদি সে অসুস্থ হয় তাহলে খেয়াল করলে দেখবেন বিছানায় শুয়ে আছে, মুখ কিছুটা ফ্যাকাসে, পেট ব্যাথা বা মাথা ব্যাথার একটা ছাপ চেহারায় দেখা যাচ্ছে। আর যদি স্কুল মিস করার অজুহাত হয় তাহলে বিছানায় শুয়ে থাকবে ঠিকই, পেট চেপেও ধরতে পারে। কিন্তু পাশাপাশি টিভি দেখবে, মোবাইলে গেম খেলবে, চেহারার মধ্যে তেমন কোন বিরক্তিকর লক্ষণ থাকবে না। আর তার কিছু পছন্দের খাবার সামনে নিলে দেখবেন খাওয়ার জন্য আগ্রহ থাকবে, কিন্তু সত্যি সত্যি শিশুর অসুস্থতা’র কারনে শরীর খারাপ হলে খাওয়ার প্রতি তেমন একটা আগ্রহ থাকবে না।

শিশুর অসুস্থতা’র সময়

ছুটির পুরো দিনটি সে খুব হাসিখুশি আর মজায় আছে। কিন্তু ছুটির পরের দিন সকালেই অসুস্থ! হোমওয়ার্ক শিট চেক করে দেখলেন, আজকে তার একটা প্রজেক্ট আছে, যেটা তার কিছুটা অপছন্দের বা কঠিন, আর সকাল থেকেই তার পেটে ব্যাথা। আবার একই দিন কোন বিশেষ পরিকল্পনা করলেন পরিবারের সবাই মিলে, অমনি তার পেটে ব্যাথা বা মাথা ব্যাথা উধাও! মুহূর্তগুলো মিলে যায়? তাহলে এটা শিশুর অসুস্থতা নয়! আপনার সন্তানের স্কুল ভীতি রয়েছে! স্কুল ভীতি থেকে স্কুল মিস করার অজুহাত তৈরি করছে সে। তার স্কুল ভীতি কেন সেটা খুঁজে বের করে সমাধানের চেষ্টা করুন।

আম্মু পেট ব্যাথা

আমি, আপনি, আমার বাবা-মা, আপনার বাবা-মা এভাবে বংশ পরম্পরায় বছরের পর বছর স্কুল মিস দেয়ার ঐতিহ্যবাহী ও সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত অজুহাত পেট ব্যাথা। বংশ পরপম্পরায় পাওয়া এই অজুহাত আমাদের সন্তানেরা দিবে এইটা স্বাভাবিক। তবে যদি তার সত্যি সত্যি পেট ব্যাথা হয় তাহলে হালকা বমি ভাব থাকবে, কোন কিছু খেতে চাইবে না, বিরক্তি প্রকাশ করবে। আর যদি অজুহাত হয়, বুঝতেই পারছেন অভিনয় করার চেষ্টা করবে! তার অভিনয়টি দেখার চেষ্টা করুন, কতটা নিখুঁতভাবে করতে পারে তাও খেয়াল করতে পারেন। অভিনয় সুন্দর হলে তাকে অভিনয় শেখাতেও পারেন। তবে সেই চিন্তার আগে সে কেন স্কুলে যেতে চায় না তা ভালোভাবে জেনে নিয়ে সমাধান করার চেষ্টা করুন।

আম্মু মাথা ব্যাথা

স্কুল মিস দেয়ার অজুহাতের ক্ষেত্রে জনপ্রিয়তার বিচারে দ্বিতীয় অবস্থানে আছে মাথা ব্যাথা। সাধারণত একটু বড় বাচ্চারা, মানে যারা একটু চালাক হয় তারা মাথা ব্যাথার অজুহাত দেয় সকাল সকাল। আপনার সন্তানও যদি সকাল সকাল মাথা ব্যাথার অজুহাত দেয় তাহলে তার গায়ে হালকা জ্বর আছে কি না দেখুন। আরো দেখুন ঘাড়ে ব্যাথা অনুভব হয় কিনা? কিংবা কোন ধরণের শব্দে বা উজ্জল আলোয় বিরক্ত হয় কিনা? যদি না হয়, তাহলে খুব বেশি চিন্তিত হওয়ার কিছু নেই। স্কুল টাইম কেটে যাওয়ার পরই তার মাথা ব্যাথা সেরে যাবে।

আপনি না থাকলে সে কেমন আচরণ করে তা খেয়াল করুন

সকাল সকাল অসুস্থতার অজুহাত দিলে তাকে একটু বিশ্রাম নিতে বলুন। আর আপনি একটু দূরে থেকে তার কার্যক্রম দেখুন। দেখবেন সে কেবল আপনি যখন সামনে থাকবেন তখনই অসুস্থতার অভিনয় করবে, আপনি সামনে থেকে চলে গেলেই দেখবেন তাকে বেশ সুস্থ দেখাচ্ছে। কিছু সময় বিছানায় শুয়ে থাকার পরই সে বিরক্ত হবে ও আপনি সামনে না থাকলে শুয়ে শুয়ে ছোট খাটো কিছু দুষ্টুমি করবে। সোজা কথা শিশুর অসুস্থতা ছাড়া তার স্বাভাবিক সকাল গুলো যেমন যায় তাকে দূর থেকে পর্যবেক্ষন করলে সেগুলোই দেখতে পাবেন ।

স্কুল মিস দিতে নিয়মিত অসুস্থতার অজুহাত দেয়? কী করবেন?

সন্তান প্রায় স্কুল মিস দেয়ার জন্য বিভিন্ন অজুহাত দিচ্ছে। আর আপনি উপরের টিপসগুলো কাজে লাগিয়ে তার অজুহাত ধরে ফেলছেন! তাকে ধমক দিয়ে স্কুলে পাঠাচ্ছেন! আমাদের এই ব্লগের উদ্দেশ্য কিন্তু তা না! আমরা জানি আপনার উদ্দেশ্যও তা না! বরং আমরা আরেকটু ভালোভাবে চিন্তার চেষ্টা করি। বোঝার চেষ্টা করি সন্তান কেন স্কুল মিস দিতে চায়? তার স্কুল ভীতি কেন? কেন হোমওয়ার্ক করতে পারছে না? স্কুলে সে কোন ধরণের বুলিংয়ের শিকার হচ্ছে না তো? স্কুলে আনন্দ ফিরিয়ে আনার জন্য কী কী করা দরকার? এই বিষয়গুলোর সমাধান করতে পারলে সন্তান মাঝে মাঝে স্কুলে যাওয়ার জন্য অসুস্থ হয়েও সুস্থ থাকার অভিনয় করবে।

বিজ্ঞানবাক্স আপনার সন্তানের বিজ্ঞান শেখাকে করে তুলবে আরো আনন্দময়। বিজ্ঞানবাক্স সম্পর্কে জানতে এখানে ক্লিক করুন।

নিয়মিত এমন কন্টেন্ট পেতে সাবস্ক্রাইব করুন

* indicates required




 

42 total views, 1 views today

What People Are Saying

Facebook Comment