Show Categories

শিশুর চোখ সুরক্ষিত রাখুন; জেনে নিন ৭ টি করণীয়।

eye problems of kids

[emaillocker]

সন্তানের চোখের সমস্যা নিয়ে চিন্তিত বাবা-মায়ের সংখ্যা প্রতিনিয়ত বাড়ছে। একটু খেয়াল করলেই দেখা যাবে আমাদের পরিচিতই এমন অনেক শিশু আছে যাদেরকে চোখের সমস্যার জন্য ভারী লেন্সের চশমা ব্যবহার করতে হয়। একটা বয়সের পর হয়তো চোখের কার্যক্ষমতা কমতে শুরু করে কিন্তু ছোট থেকেই সন্তানের চোখের সমস্যা কোন বাবা-মায়েরই কাম্য নয়। চোখের যত্ন ও কিছু সতর্কতা অবলম্বন করলে শিশুর চোখের সমস্যা প্রতিরোধ করা সম্ভব। চলুন আজকে জেনে নিই শিশুর চোখের যত্নে আমাদের কিছু সতর্কতা ও করণীয়।

চোখে কাজল ও সুরমা ব্যবহার পরিহার করুন

শিশুর চোখে কাজল ও সুরমা ব্যবহার করার রীতি অনেক আগে থেকেই আমাদের দেশে প্রচলিত আছে। কিন্তু বাজারে পাওয়া কাজল ও সুরমায় যে সব রাসায়নিক ব্যবহার করা হয় সেসব চোখের জন্য অনেক ক্ষতিকর। অনেক উন্নতমানের কাজলেও শিশুর চোখের জন্য ক্ষতিকর রাসায়নিক পাওয়া গেছে। চোখে এইসব ব্যবহার করার ফলে ক্ষতিকর রাসায়নিক শিশুর চোখের রেটিনাতে প্রবেশ করে চোখের দীর্ঘমেয়াদী ক্ষতি করতে পারে।

শিশুকে চোখ কচলানো থেকে বিরত রাখুন

চোখে কিছু পড়লে চোখ কচলানোর অভ্যাস প্রায় অনেকেরই আছে। কিন্তু বেশি বেশি চোখ কচলানো চোখের জন্য বড় ক্ষতি বয়ে আনতে পারে। চোখে কিছু পড়ার পর চোখ কচলালে সেই বস্তুটি শক্ত হলে স্বভাবতই চোখ আঘাতপ্রাপ্ত হবে। কোন পোকামাকড় চোখে প্রবেশ করলে কচলানোর ফলে চোখে ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমণের সম্ভাবনা থাকে। চোখে কিছু ঢুকে গেলে না কচলিয়ে বস্তটি বের করুন ও দ্রুত পরিষ্কার পানি দিয়ে চোখ পরিষ্কার করে নিন।

শিশুর ডিজিটাল ডিভাইস ব্যবহারে সতর্ক হোন

শিশুদের মাঝে মাঝে দীর্ঘসময় ডিজিটাল ডিভাইস ব্যবহার করতে দেখা যায়। যার মধ্যে অন্যতম ভিডিও গেমস ও মোবাইলে গেমস খেলা। মোবাইলে গেমস খেলতে একটানা অনেকসময় ধরে মোবাইলের দিকে তাকিয়ে থাকতে হয়। মোবাইল ও অন্যান্য ডিজিটাল ডিভাইস থেকে ব্লু লাইট নিঃসৃত হয়। দীর্ঘক্ষণ মোবাইল ব্যবহারে ব্লু লাইট চোখের কর্নিয়ার ক্ষতি করে। NFI এর এক গবেষণা বলছে ব্লু লাইট প্রাপ্ত বয়স্কদের চেয়ে শিশুদের চোখের ক্ষতি বেশি করে।

টেলিভিশন স্ক্রিন থেকে ন্যূনতম দূরত্ব বজায় রাখুন

শিশুদেরকে খুব কাছ থেকে টেলিভিশন দেখতে দেয়া যাবে না। টেলিভিশন থেকে চোখের ন্যূনতম দূরত্ব থাকতে হবে ১০ ফুট। কিন্তু চক্ষু বিশেষজ্ঞরা বলছেন টিভির স্ক্রিনের সাইজের উপর নির্ভর করে এই দূরত্ব বাড়ানো উচিত। টিভির স্ক্রিনের সাইজের চেয়ে ৫ গুন দূরত্বে বসে টিভি দেখা নিরাপদ। যেমন, টিভি যদি ৩২ ইঞ্চি হয় তাহলে ন্যূনতম দূরত্ব হবে ৩২X৫=১৬০ ইঞ্চি(১৩.৩১ফুট) অর্থ্যাৎ ৩২ ইঞ্চি স্ক্রিনের টেলিভিশন থেকে ১৩ ফুট দূরত্বে বসে টিভি দেখা নিরাপদ।

চোখের জন্য উপকারী খাবার খেতে দিন

সঠিক খাবার শরীরের জন্য সবসময় দরকার। চোখের বেলায়ও এর ব্যতিক্রম নয়। ‘ভিটামিন এ’ সমৃদ্ধ খাবার চোখের জন্য খুব উপকারী, যেমন সবুজ শাক-সবজি বিশেষ করে পালং শাক। সবুজ শাককে চোখের সুরক্ষায় প্রধান খাদ্য বললেও বাড়িয়ে বলা হবে না। তাছাড়া পাকা পেপে, পাকা আম, ডিম, গাজর, ছোট মাছ, আমলকি, কমলা, মালটা চোখের দৃষ্টিশক্তি বাড়াতে সাহায্য করে। গর্ভাবস্থায় মাকে সবুজ শাক-সবজি খাওয়ালে শিশুর দৃষ্টিশক্তি প্রখর হয়।

তীব্র রোদে সানগ্লাস ব্যবহার করুন

সুর্যের আলোর আল্ট্রাভায়োলেট রশ্মি শরীরের সাথে সাথে চোখের জন্যও ক্ষতিকর। তাছাড়া সূর্যের আলো কখনো কখনো অনেক বেশি তীব্র হয়, বিশেষ করে গ্রীষ্মকালে। সেজন্য যেকোন সময় তীব্র রোদে বের হলে কিংবা লম্বা সময়ের জন্য কোথায় বেড়াতে গেলে শিশুর চোখের সুরক্ষার জন্য সানগ্লাস ব্যবহার করুন। সানগ্লাস সূর্যের আলোর ক্ষতিকারক রশ্মি থেকে চোখকে নিরাপদ রাখার পাশাপাশি ধুলা-বালি থেকেও চোখকে রক্ষা করে।

বছরে অন্তত একবার চোখ পরিক্ষা করুন

প্রতি বছরে অন্তত একবার শিশুর চোখ পরিক্ষা করা গুরুত্বপূর্ণ। তাছাড়া সন্তান যদি চোখ সম্পর্কিত কোন অভিযোগ করে, যেমন চোখ দিয়ে পানি পড়া, ঠিকঠাক দেখতে না পারা, বেশিক্ষণ কোথাও তাকিয়ে থাকলে চোখ জ্বালা করা; এসব ক্ষেত্রে সাথে সাথে সন্তানকে একজন চক্ষু বিশেষজ্ঞ দেখান ও যথাযথ ব্যবস্থা নিন।

শিশুর চোখ সুরক্ষিত থাকুক। সুরক্ষিত চোখে শিশু পৃথিবীকে দেখুক, জানুক, বদলে দিক।

তথ্যসুত্র-Parenting, Very Well Health

বাংলাদেশের প্রথম এবং একমাত্র সায়েন্স কিট অন্যরকম বিজ্ঞানবাক্স আপনার সন্তানের অবসর সময় সুন্দর করবে, এবং তার মেধা বিকাশে সাহায্য করবে। বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন।

[/emaillocker]

766 total views, 1 views today

What People Are Saying

Facebook Comment