সন্তানের মুখ থেকে ছোট্ট করে পাপ্পা কিংবা মাম্মা শব্দগুলো শোনার জন্য সে কি তুমুল অপেক্ষা আমাদের। সে কিছুই বলতে পারে না, তাও আমাদের সারাদিন তার সাথে বকবক করা। শুধু একটা অপেক্ষায়, কবে প্রথম কথা বলে উঠবে সে! কবে আমাদের অবাক করে দিয়ে তার সাথে বকবক করার প্রতিউত্তর দিয়ে দিবে। এরপর দুনিয়ার সব কাজ বাদ। সন্তানের সাথে শুধু কথা আর কথা! চলুন, সে অপেক্ষাকে একটু কমিয়ে দেই! প্রথম দিনেই কথা বলে উঠার জন্য কোন মন্ত্র শেখাবো না আপনাকে। শেখাবো শিশুর ভাষা দ্রুত সমৃদ্ধ করার কিছু কৌশল। যে কৌশলগুলো কাজে লাগিয়ে আপনি সন্তানকে দ্রুত কথা শেখানোর পাশাপাশি তার ভাষাজ্ঞানকেও করতে পারবেন উন্নত ও সমৃদ্ধ। আর আপনি সন্তানের মুখ থেকে মিষ্টি দুষ্টু কথা শুনে আনন্দে আত্মহারা হবেন।

হ্যালো হ্যালো

হ্যাঁ। টেলিফোনের কথাই বলছি। দুটো খেলনা টেলিফোন নিয়ে সোনামণির সাথে হ্যালো হ্যালো খেলতে পারেন। একটা টেলিফোন আপনি নিন, আরেকটা টেলিফোন তাকে। এরপর কাছাকাছি থেকে কথা বলুন দু-জনে। জিজ্ঞেস করুন কেমন আছে সে? খেয়েছে নাকি খাবে? মাঝে মাঝে নাম ধরে ডাকুন। বলুন চলে আসতে মায়ের কাছে। এই হ্যালো হ্যালো খেলায় সন্তান অনেক মজা পাবে। আর আপনি সমৃদ্ধ করতে পারবেন তার ভাষাও। মাঝে মাঝে আত্মিয় স্বজন ফোন করলে তাকে ধরিয়ে দিন। টুকটাক যাই পারে বলুক সে।

গান, কবিতা কিংবা ছড়া

ঘুমাতে যাওয়ার আগে আয় আয় চাঁদ মামা কিংবা হাট্টিমাটিম টিম; খাওয়ার আগে “ছোটন ছোটন ডাক পাড়ি, ছোটন মোদের কার বাড়ি; এমন মজার সব ছড়া, গান, কবিতা পড়ে বা গেয়ে শোনান তাকে। দেখবেন শুনতে শুনতে আধো আধো বুলিতে সন্তান একদিন নিজেই বলে উঠবে “আয় আয় তাদ মাম্মা, তিপ দিয়ে দা, আমার কপালে আদ তিপ দিয়ে দা”।

এটা কি? ওটা কি?

“বাবু তোমার মাথায় কি? বাবু তোমার পেট কোথায়?” মজায় মজায় কিন্তু আপনার ছোট্ট বাবুকে এভাবে জিজ্ঞেস করতে পারেন। তার শরীরের বিভিন্ন অঙ্গের নাম শেখানো ও তা সনাক্ত করতে বলা, নাম জিজ্ঞেস করা ইত্যাদির মাধ্যমে তার ভাষাগত উন্নয়ন ধীরে ধীরে সমৃদ্ধ হবে। শারীরিক অঙ্গ ছাড়াও ঘরের নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসের নামও তাকে শেখাতে পারেন।

মজার মজার বই পড়া

শিশুদের বর্ণ শেখানোর জন্য বড় বড় ছবির মজার মজার সব বই আছে। যেখানে বর্ণের সাথে মিলিয়ে ছড়াও আছে। শিশুকে নিয়ে অবসরে তা পড়াতে পারেন। এখন বড় আকারে ফ্লোর মেটের মতোও বর্ণ পরিচয়, ফুল, পাখি ইত্যাদির ছবি সম্বলিত মজার মজার ডিজাইন আছে। এগুলো শিশুর বিছানায় কিংবা বাসার ফ্লোরে ছড়িয়ে শিশুকে সেখানে বসিয়ে বর্ণ, ফুল ও পাখি চেনার খেলা খেলতে পারেন। এতে শিশুর ভাষাগত উন্নয়নের পাশাপাশি শারীরিক গঠন সমৃদ্ধ হবে।

শিশুর সামনে কোন খারাপ শব্দ নয়

শিশুররা অনুকরণ প্রিয়। মনে রাখবেন, তার চারপাশ থেকে ভেসে আসা শব্দগুলোই ধীরে ধীরে তার মস্তিষ্কে জমা হবে। সে ওইগুলোই বলবে। সুতরাং তার সামনে সেভাবেই কথা বলুন আপনি তাকে যা শেখাতে চান। নিছক মনের ভুলেও যদি কখনো একটা খারাপ শব্দ তার সামনে উচ্চারণ করেন। সে তাই বলে উঠবে। তখন ভালো লাগার চেয়ে খারাপ লাগবে বেশি। আর যদি খারাপ শব্দ বলে উঠে তাহলে সাবধান হোন। এখানে তার কোন দোষ নাই। শব্দটি সে আপনার কাছ থেকে কিংবা তারা আশপাশের কারো কাছ থেকেই শুনেছে।

শিশুর ভাষা সমৃদ্ধ হবে পরিবার থেকেই। আপনি তার সাথে যেভাবে কথা বলবেন সেও তাই শিখবে। সেজন্য শিশুর ভাষা’কে সমৃদ্ধ, সুন্দর ও মিষ্টি করার জন্য আপনিও তার সাথে সেভাবেই কথা বলুন।

আরো পড়ুন
বাচ্চাদের অংক শেখার সহজ উপায়
শিশুকে হাঁটা শেখানোর ৫ টি দারুণ টিপস
শিশুর মজার খেলা; যে খেলা স্মৃতিশক্তি বাড়ায়

আপনার সন্তানকে সৃজনশীল করে গড়ে তুলতে তাকে বিজ্ঞানবাক্স দিন। বিজ্ঞানবাক্স কিনতে এখানে ক্লিক করুন।

32 total views, 1 views today

What People Are Saying

Facebook Comment