Show Categories

শিশুর রুমে এসি ও এয়ারকুলার ব্যবহারে সতর্কতা ও কিছু পরামর্শ।

baby care

অনেকেই বাসায় এসি অথবা এয়ারকুলার ব্যবহার করেন। সদ্যজাত শিশুর রুমেও এসি ও এয়ারকুলার ব্যবহার করেন। কিন্তু প্রশ্ন থেকে যায়, শিশুর ঘরে এসি অথবা এয়ারকুলার ব্যবহার করা নিরাপদ তো? কিংবা এসি অথবা এয়ারকুলার ব্যবহার না করলে কি শিশুর সমস্যা হবে? এই প্রশ্নের উত্তর কেবল একবাক্যে অথবা একলাইনে দেয়া যাবে না। শিশুর রুমে এসি অথবা এয়ারকুলার ব্যবহার করা ক্ষতিকর না, কিন্তু মানতে হবে কিছু নিয়ম। আবার শিশুর শারীরিক তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণে এসি অথবা এয়ারকুলার থাকতেই হবে, এমন কোন কথা নাই। কিন্তু এখানেও মানতে হবে কিছু নিয়ম। চলুন নিয়মগুলো জেনে নিই।

এসি ও এয়ারকুলার ব্যবহারের নিয়ম ও সতর্কতা
শিশুর রুমের পরিবেশ আরামদায়ক করার জন্য এসি ও এয়ারকুলার ব্যবহার করা যায়। কিন্তু মানতে হবে কিছু সতর্কতা।

তাপমাত্রা মনিটর করতে হবে
রুমে এসি অথবা এয়ারকুলার ব্যবহার করলে শিশুর রুমের তাপমাত্রা মনিটরিং করতে হবে। শিশুর রুমের তাপমাত্রা কত হলে সেটা শিশুর জন্য ক্ষতিকর হবে না? এই প্রশ্নে বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, শিশুর রুমের তাপমাত্রা ২২-২৬ ডিগ্রী সেলসিয়াসের মধ্যে রাখা উচিত।

পুরো শরীর আবৃত রাখতে হবে
এসি ও এয়ারকুলার থেকে বাতাস সরাসরি শিশুর শরীরে আসা ক্ষতিকর। সেজন্য এসি ও এয়ারকুলার ব্যবহারের সময় অবশ্যই শিশুর সারা শরীর নরম কাপড়ে আবৃত করে রাখতে হবে। সারা শরীর আবৃত রাখার দিকে রাতের বেলায় ভালোভাবে নজর দিতে হবে।

ত্বকে আর্দ্রতা বজায়  রাখা জরুরী
রুমে এসি অথবা এয়ারকুলার চললে রুমের আর্দ্রতা কমে যায়। সেজন্য শিশুর ত্বকে আর্দ্রতা ধরে রাখার জন্য তেল অথবা লোশন ব্যবহার করা উচিত। অনেক মা শিশুর নাকে হালকা তেল দিয়ে দেন, রুমে এসি থাকলে এটা শিশুর জন্য উপকারী। তাছাড়া রুমের আর্দ্রতা ধরে রাখতে রুমে একটা পাত্রে কিছু পানি রেখে দিতে পারেন।

শিশুকে বাইরে নেয়ার আগে এসি বন্ধ করুন
এসি রুম থেকে বের হওয়ার পর আপনার অনুভূতিটা কল্পনা করে দেখুন। একই অনুভূতি শিশুরও হয়। আমাদের শরীর তৎক্ষনাৎ তাপ নিয়ন্ত্রণ করতে পারলেও শিশুর শরীর তা পারে না। এই ছোট ভুলের জন্য শিশু অসুস্থ হতে পারে। শিশুকে বাইরে নেয়ার কিছুক্ষণ আগে এসি বন্ধ করে শিশুর শরীরের তাপ স্বাভাবিক করে তারপর বাইরে নেয়া উচিত।

রুমে ফ্রেশ বাতাসের ব্যবস্থা রাখুন
শিশুর রুমে সবসময় ফ্রেশ বাতাস চলাচলের ব্যবস্থা রাখতে হবে এমন কী এসি অথবা এয়ারকুলার চালানোর সময়েও। সেজন্য রুমের একটা জানালা খুলে রাখুন, যেনো রুমে বাতাস চলাচল করতে পারে। প্রাকৃতিক সতেজ বাতাস শিশুর জন্য অনেক উপকারী।

নিয়মিত এসি ও কুলার মেরামত করতে হবে
এসি ও কুলার নিয়মিত পরিস্কার ও মেরামত করতে হবে। এসি অথবা এয়ারকুলার শুধু যে ঠান্ডা বাতাস দেয় তা না। খারাপ যন্ত্রপাতির কারনে এসি ও এয়ারকুলার মাঝে মাঝে অনিরাপদও হতে পারে। যা আপনার সন্তানের ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়াবে।

অতিরিক্ত ব্যবহার পরিহার করা উচিত
এসি ও এয়ারকুলার অতিরিক্ত ব্যবহার না করাই উত্তম। অতিরিক্ত ব্যবহার করলে শিশুর শরীরের তাপমাত্রা অস্বাভাবিক হারে কমে যেতে পারে যা শিশুর জন্য ক্ষতিকর।

আরো পড়তে পারে- সন্তান লালন-পালন সংক্রান্ত গাইড, দেখুনতো না জেনেই  ৬ টি ভুল করছেন কী না?

এসি ও এয়ারকুলার ব্যবহার না করেও শিশুর শরীরের তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখার বিকল্প পদ্ধতি
শিশুর শরীরের তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ করার ক্ষেত্রে আপনি চাইলে এসি অথবা এয়ারকুলার বাদ দিতে পারেন। কিংবা এসি অথবা এয়ারকুলার না থাকলেও আপনি শিশুর শরীরের তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ করতে পারেন।
• শিশুর রুমে ফ্যান ব্যবহার করা যেতে পারে।
• রুমের জানালায় অথবা বাইরে থেকে রোদ প্রবেশ কর এমন জায়গায় অতিরিক্ত তাপ ও রোদ আটকাতে ভালো মানের পর্দা ব্যবহার করতে পারেন।
• শিশুকে পাতলা সুতি কাপড় পরিধান করার দিকে নজর দিন।
• শিশুর বিছানায় পলিস্টার অথবা সিল্কের বেডশিট পরিহার করে উজ্জ্বল রংয়ের সুতি কাপড়ের বেডশিট ব্যবহার করতে পারেন।
• রুমে ভ্যান্টিলেটর ফ্যান ব্যবহার করা উচিত, যাতে রুমে বাতাস চলাচল করতে পারে।

সদ্যজাত শিশুর জন্য এসি অথবা এয়ারকুলার ব্যবহারে সতর্ক হোন সন্তানকে সুস্থ্ রাখুন।

বাংলাদেশের প্রথম এবং একমাত্র সায়েন্স কিট অন্যরকম বিজ্ঞানবাক্স আপনার সন্তানের অবসর সময় সুন্দর করবে, এবং তার মেধা বিকাশে সাহায্য করবে। বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন।

তথ্যসূত্র- Parenting Firstcray, Baby Center

680 total views, 1 views today

What People Are Saying

Facebook Comment