Show Categories

হোমওয়ার্ক সন্তানকেই করতে দিন। গড়ে তুলুন ৫ টি অসাধারণ গুণাবলী।

হোমওয়ার্ক

অনেক বাবা-মা’ই আছেন যারা বাচ্চাদের হোমওয়ার্কে সরাসরি যুক্ত থেকে করে দেন। তাদের ধারণা, বাচ্চাকে নিজে নিজে হোমওয়ার্ক করতে দিলে তারা ভুল করবে। কিন্তু ডিউক ইউনিভার্সিটির একটি গবেষণা বলছে, যেসব বাচ্চারা হোমওয়ার্কের কাজ নিজেরা করে তাদের ভেতর আত্মবিশ্বাস, প্রেরণা, সৃজনশীলতা, কৌতুহলের মতো কিছু অসাধারণ গুন জন্ম নেয়। আজকে আমরা সেইসব সম্পর্ক জানবো।

আত্মবিশ্বাস বাড়িয়ে দেয়

যে সব বাচ্চারা নিজেই নিজের হোমওয়ার্কের কাজ করে তাদের আত্মবিশ্বাস অনেক বেড়ে যায়। নিজে নিজে হোমওয়ার্ক সমাধানের ফলে তারা পড়ালেখার প্রতি অনেক বেশি আগ্রহী হয়ে উঠে। এবং নিজে নিজে আরো নতুন কিছু করার ব্যাপারে আগ্রহী হয়ে উঠে। গবেষণায় দেখা গেছে, যেসব বাচ্চাদের হোমওয়ার্ক বাবা-মা করে দেয়, সে সব বাচ্চারা নতুন কিছু শেখার প্রতি আগ্রহ হারিয়ে ফেলে, তাদের আত্মবিশ্বাসও কমে যায়।

বিজ্ঞানবাক্স

 

আরো জানুন- আদর্শ  অভিভাবক হওয়ার ১০ টি গুণাবলী।

প্রেরণা ও আগ্রহ বাড়িয়ে দেয়

নিজে নিজে হোম ওয়ার্কের চর্চা শিশুদের ভেতর প্রেরণা বাড়ায়। অপরদিকে, বাচ্চাদের হোমওয়ার্ক সরাসরি বাবা-মা করে দিলে বাচ্চারা প্রেরণা ও আগ্রহ হারিয়ে ফেলে। বাচ্চারা নিজে থেকে সাহায্য চাইলে সাহায্য করা যেতে পারে। কোন কিছু বুঝতে সমস্যা হলে বুঝিয়ে দেয়া যেতে পারে কিন্তু তার কাজটা তাকেই সম্পন্ন করার ব্যাপারে উৎসাহী করতে হবে। অনেক সময় দেখা যায়, বাচ্চারা কিছু বাড়ির কাজ করতে চায় না কিংবা কিছু হোমওয়ার্ক তাদের কাছে বিরক্ত লাগে সেক্ষেত্রে মনোবিজ্ঞানী লাডমিলা প্যাট্রানোভাস্কো বলেন, বাচ্চাদেরকে বিরতি দিতে হবে, কোনভাবেই তাদের চাপ দেয়া যাবে না। তাদেরকে তাদের পছন্দ মতো সময় ও পছন্দ মতো উপায়ে হোমওয়ার্ক করার সুযোগ করে দিতে হবে।

দায়িত্ববোধ জন্মাতে সাহায্য করে

গবেষণায় দেখা গেছে যে সব বাচ্চারা নিজে নিজে হোমওয়ার্ক করে তারা বড় হয়ে অন্যদের চেয়ে বেশি দায়িত্বশীল হয়ে থাকে। শিশুরা হোমওয়ার্কের কথা ভুলে গেলে তাকে চাপ কিংবা বকাঝকা না করে তাকে হোমওয়ার্কের কথা মনে করিয়ে দেন। এতে দেখা যাবে পরের বার সে দায়িত্বের সাথে নিজেই নিজের হোমওয়ার্কের জন্য মনোযোগী হবে।

কৌতুহল বাড়ায়

শিশুরা নিজে নিজে হোমওয়ার্ক করতে গেলে যেসব সমস্যা পায় সেগুলো তার ভেতরে কৌতুহল ও জানার আগ্রহ বাড়িয়ে দেয়। বাবা-মা হোমওয়ার্ক করে দিলে শিশুরা সমস্যার মুখোমুখিও হয় না তাদের ভেতর কৌতুহলও জন্ম নেয় না। নিজে নিজে হোমওয়ার্ক করার ফলে বাচ্চাদের জানার পরিসর বেড়ে যায়।

 

আরো পড়তে পারেন- বদলে যাক তিক্ততার হাওয়া, সন্তান পাক স্নেহের দাওয়া।

সৃজনশীলতা বাড়ায়

শিশুরা নিজে নিজে বাড়ির কাজ করতে গিয়ে যে সকল সমস্যার মুখোমুখি হয় সেগুলো তারা নিজে নিজে সমাধানের উপায় বের করে। এই চর্চাটা তাদের মধ্যে সৃজনশীলতার জন্ম দেয়। কখনো কখনো একই সমস্যার একাধিক সমাধানও তারা বের করতে পারে। যা পরবর্তী জীবনে তাদেরকে সঠিক সমাধান পেতে সাহায্য করে।

বাংলাদেশের প্রথম এবং একমাত্র সায়েন্স কিট অন্যরকম বিজ্ঞানবাক্স আপনার সন্তানের অবসর সময় সুন্দর করবে, এবং তার মেধা বিকাশে সাহায্য করবে। বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন।

689 total views, 1 views today

What People Are Saying

Facebook Comment