Show Categories

ডাইনোসর বিষয়ক কিছু ভ্রান্ত ধারণা এবং প্রকৃত সত্য

 

আজ আমরা ডাইনোসর নিয়ে খুব মজার কিছু তথ্য জানবো। অবশ্য সেগুলোর অনেক কিছুই তোমরা হয়তো জানো। কিন্তু বেশিরভাগই ভুলভাবে। তাহলে এসো বন্ধুরা, আমরা তাহলে প্রকৃত সত্যগুলো জেনে নেই?

যদিও ডাইনোসর পৃথিবী থেকে বিলুপ্ত হয়ে গেছে কিন্তু তাদের নিয়ে মিথ বা কাল্পনিক/পৌরাণিক গল্পের শেষ হয় নি। এখন আর ডাইনোসর না থাকলেও একসময় বাস্তবে লাখ লাখ ডাইনোসর ছিলো। আর তারা আমাদেরই মতো পৃথিবীতে ঘুরে বেড়াতো।

##     ডাইনোসর বলতেই আমরা বুঝি অনেক হিংস্র দানবাকার কোন প্রানী। অনেকেই একে দৈত্যাকার হিংস্র টিকটিকি বলে থাকে। কিন্তু ডাইনোসর প্রথমত কখনই হিংস্র না, আবার তারা টিকটিকি, সরীসৃপ  (Reptile) জাতীয় কোন প্রাণীও না। বইয়ের ভাষায় ডাইনোসরের সঠিক অর্থ করলে দাঁড়ায় ‘অতিকায় বড়’।

##      আবার অনেকেই মনে করে যে ডাইনোসর বলতেই বিশাল বিশাল আকৃতির হত। এ কথাটিও মিথ বা ভুল।  অনেক ছোট আকৃতির ডাইনোসরও তখন ছিলো। তোমরা শুনলে অবাক হবে যে মাইক্রোর‍্যাপ্টর Microraptor নামে ছোট্ট একটা ডাইনোসর ছিল যে গুলোর আকার ছিল কাকের Crow সমান। এই মাইক্ররেপ্টরের ফসিল অর্থাৎ কঙ্কাল চায়না তে আবিস্কৃত হয়েছে।

##      অনেকে বিশ্বাস করে যে মানুষ আর ডাইনোসর একই সাথে বসবাস করতো। অনেক মনে করে মানুষই ডাইনোসরদের মেরে পৃথিবী থেকে শেষ করেছে। এগুলোর সবই মিথ বা সম্পুর্ন ভুল। কারন, ডাইনোসর পৃথিবী থেকে বিলুপ্ত হয়ে গিয়েছিলো প্রায় ৬৫ মিলিয়ন বছর আগে আর মানুষের পৃথিবীতে প্রথম আগমন হয় মাত্র ৬ মিলিয়ন বছর আগে।

##      অনেকের মতে ডাইনোসস বিলুপ্ত হয়েছিল কারণ স্তন্যপায়ী প্রাণী বা Mammals তাদের ডিম খেয়ে ফেলেছিলো। এটিও একটি মিথ এবং ভুল ধারনা।তবে তোমাদের জেনে রাখা ভালো যে, তখন মানুষ না থাকলেও অনেক স্তন্যপায়ী প্রাণী ছিল। কিন্তু তারা ডাইনোসরের ডিমের তুলনায় আকারে এতই ছোট ছিল যে, ডিম তাদের উপরে পরলে তারা গুড়ো হয়ে যাওয়াই স্বাভাবিক ছিল। একটা ডাইনোসরের ডিমের তুলনায় তখনকার স্তন্যপায়ী প্রাণীর ওজন ছিল খুব সম্ভবত ২ গ্রাম।

##     তোমরা মুভিতে বা কার্টুনে নিশ্চয় কিছু ডাইনোসর দেখে থাকবে যারা আকাশে ওড়ে, আবার কোনোটা পানির নিচে থাকে। আসলে আমরা এগুলোকে ডাইনোসর বললেও প্রকৃতপক্ষে এরা ডাইনোসর না। এদের ডাইনোসর ভাবাটাও একটা মিথ বা ভুল।

যেমন আকাশে উড়ে ‘টেরোসরাস – Pterosaur’ আবার পানিতে থাকে ‘প্লিজিয়সরস – Plesiosaur’ এবং ‘ইকথিওসরস – Ichyosaur’ এরা কখনই ডাইনোসর ছিল না। এরা ছিল রেপটাইল বা সরীসৃপ আর উভচর। আর ডাইনোসর ছিল শুধুমাত্র স্থলচর।

##      ডাইনোসরদের নিয়ে সবচেয়ে বড় যে মিথ বা ভুল ধারনাটি পোষণ করা হয়, তা হলো তাদের বিলুপ্তির কারণ।কীভাবে এত বিশালাকার প্রাণীর সবগুলো প্রজাতিই পৃথিবী থেকে নিশ্চিহ্ন হয়ে গেল? তাদের কি কেউ মেরে ফেলেছে অথবা কোথাও নিয়ে গিয়েছে? নাকি তারা নিজেরাই পৃথিবীর এমন কোথাও লুকিয়ে আছে যে জায়গার সন্ধান মানুষ এখনও জানে না?অথবা তারা টাইম-মেশিন এর মত টাইম-ট্রাভেল করে অনেক ভবিষ্যতে বা অতীতে ফিরে গিয়েছে? নাকি পৃথিবীতে এলিয়েন রা এসে তাদের সবাইকে মেরে ফেলেছে?

আসল সত্যটা কী? বন্ধুরা আসল সত্য এগুলোর একটাও না। এগুলোর সবগুলি মিথ বা ভুল ধারনা।

সত্যটি হল, ডাইনোসর প্রজাতির বিলুপ্তি ঘটে ভয়ংকর পরিবেশ বিপর্যয়ের মাধ্যমে। পরিবেশ বিপর্যয় হল, ঝড়, বন্যা, জলোচ্ছ্বাস ইত্যাদি। এগুলো এত বড় মাত্রায় শুরু হয়েছিলো যে একপর্যায়ে ডাইনোসররা আর টিকে থাকতে পারে নি। যেমন, আগ্নেয়গিরির লাভা আর আকাশ থেকে আগুনের গোলা এসে পৃথিবীতে আঘাত করে।আকাশ থেকে এসিড বৃষ্টি হয়েছিলো।আবার বড় মাত্রার সুনামি হয়ে হাজার হাজার ডাইনোসরকে ভাসিয়ে নিয়ে যায়।পৃথিবীতে গাছ না থাকায় অক্সিজেন কমে যায় ফলে পুরো পৃথিবী বিষাক্ত গ্যাসে ভরে গিয়েছিল।

মুলত এই কয়টি পরিবেশ বিপর্যয় পৃথিবী থেকে ডাইনোসর বিলুপ্তির প্রধান কারন হিসেবে বিজ্ঞানীরা মনে করেন।

আজ তাহলে এ পর্যন্তই। পরবর্তি ব্লগে আরও মজার সব গল্প নিয়ে আসছি তোমাদের মাঝে।

আরো পড়তে পারো- পৃথিবী সমতল নয়, গোলাকার তুমি জানো তো?

বাংলাদেশের প্রথম এবং একমাত্র সায়েন্স কিট অন্যরকম বিজ্ঞানবাক্স আপনার সন্তানের অবসর সময় সুন্দর করবে, এবং তার মেধা বিকাশে সাহায্য করবে। বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন।

1,075 total views, 1 views today

What People Are Saying

Facebook Comment