জাংকফুড কী সেটা অনেকেই জানেন। লবণ, শর্করা এবং প্রচুর ফ্যাটে পরিপূর্ণ থাকে, অথচ পুষ্টিগুণ নেই বললেই চলে, এমন খাবারকেই সাধারণত জাংকফুড হিসেবে ধরা হয়। কোলাজাতীয় ড্রিঙ্কসহ যে কোন সফট ড্রিঙ্কস, ফাস্ট ফুড, স্ন্যাক্সসজাতীয় খাবারগুলোই জাংকফুডের তালিকাভুক্ত। খেতে খুব মজা বলে শিশুরা প্রায়ই কিংবা রোজই কোন না কোন জাংকফুড খাচ্ছে, কিন্তু এতে করে তারা অনেক বেশি ক্ষতির সম্মুখীনও হচ্ছে। কী রকম ক্ষতি, জানা থাকা দরকার সবারই-

১। শরীরকে মেদবহুল করে তোলে:

স্থূলতার ক্ষেত্রে জাংকফুড এক নম্বর ভিলেন। হাভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকদের মতে, নিয়মিত ফাস্ট ফুড খাওয়া শিশুদের মধ্যে ফাস্টফুড না খাওয়া শিশুদের তুলনায় ১৮৭ এক্সট্রা ক্যালরি জমা হয়, যা বছরে প্রায় ৬ পাউন্ড করে ওজন বৃদ্ধি করে। আর, স্থূলতার ফলে শরীরে যে নানারকম রোগ বাসা বাঁধতে পারে, সেটা অনেকেরই জানা।

২। ডায়াবেটিস রোগ-এ ভূমিকা রাখে:

শরীরে ফাইবার এবং অন্যান্য ভিটামিন ও পুষ্টিগুণের পরিবর্তে শর্করার আধিক্য দেখা দিলে শরীরে ইনসুলিনের মাত্রা গড়বড় হতে পারে। ইনসুলিনের মাত্রা অতিরিক্ত পরিমাণে বেড়ে গেলে শরীরের কোষগুলো এই প্রয়োজনীয় হরমোন আর গ্রহণ করতে চায় না। একে বলে, ‘insulin resistance’. এর ফলে শরীরে টাইপ-২ ডায়াবেটিসের ঝুঁকি বেড়ে যায়, যাতে আক্রান্ত হতে পারে শিশুরাও।

৩। হতাশ করে তোলে:

খুবই অদ্ভুত লাগে শুনতে, তাই না? অদ্ভুত হলেও এটা সত্যিই। “Fast Food and Junk Food: An Encyclopedia of What We Love to Eat” বইয়ের রচয়িতা, গবেষক Andrew F. Smith এর মতে, জাংক ফুড শিশু এবং টিন-এজারদের মধ্যে হতাশার পরিমাণ স্বাভাবিকের তুলনায় ৫৮ ভাগ বাড়িয়ে তোলে। এতে শিশুরা অধৈর্য্য, অমনোযোগী এবং বিষণ্ণ হয়ে পড়ে। আবার, বয়ঃসন্ধিকালে মানুষের শরীরে প্রয়োজনীয় হরমোনগুলোর পরিবর্তনের ফলে মানসিক অবস্থা এবং আচরণের উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন ঘটে। স্বাস্থ্যকর খাবার এই প্রক্রিয়াকে নিয়ন্ত্রণে রাখে, যেখানে জাংক ফুডের ফলাফলটা একেবারেই উলটো।

৪। পুষ্টি-ঘাটতির ফলে সৃষ্ট সমস্যা:

জাংক ফুডে ভিটামিন, পানি এবং খনিজের অভাব থাকায়, এতে অভ্যস্ত হয়ে যাওয়ার ফলে শরীরে পুষ্টি-ঘাটতি দেখা দেয়। আবার, রুচি নষ্ট হয় বলে স্বাস্থ্যকর খাবারের প্রতিও আগ্রহ কমে যায়। এই পুষ্টিহীনতার ফলে ঘুমের সমস্যা, আচরণগত পরিবর্তন কিংবা পরীক্ষায় ফলাফল খারাপ হওয়াসহ  অন্যান্য শারীরিক ক্ষতির মুখোমুখি হতে পারে শিশু এবং টিন-এজাররা-University of New Hampshire Cooperative Extension-এর সদস্যরা এমনটাই মনে করেন।

৫। ব্রেইন ক্ষতির সম্মুখীন হয়:

Deakin University and the Australian National University’র গবেষকরা সম্প্রতি বলেছেন, জাংক ফুডের অপকারীতা আগে যা ধারণা করা হত, তার চেয়ে অনেক বেশি। অস্বাস্থ্যকর খাবার গ্রহণের ফলে মস্তিষ্কের হিপোক্যাম্পাস অঞ্চল সংকুচিত হয়ে পড়ে, এতে করে স্মৃতিশক্তি এবং নতুন কিছু আত্মস্থ করার ক্ষমতা ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে। The Ohio State University (OSU) and University of Texas এর গবেষকরা জানিয়েছেন, অতিমাত্রায় জাংকফুড খাওয়া শিশুদের গণিত এবং বিজ্ঞানে স্কোর খারাপ হওয়ার সম্ভাবনা অনেক বেশি

বাংলাদেশের প্রথম এবং একমাত্র সায়েন্স কিট অন্যরকম বিজ্ঞানবাক্স আপনার সন্তানের অবসর সময় সুন্দর করবে, এবং তার মেধা বিকাশে সাহায্য করবে। বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন।

403 total views, 1 views today

What People Are Saying

Facebook Comment