সব  বিজ্ঞানবাক্স দেখতে ক্লিক করুন 

 

আমরা মূলত এটাকে দেখি একটা বাচ্চার মধ্যে  স্বপ্ন তৈরির উপকরণ হিসেবে। 

বিজ্ঞানের উপকরণ না, স্বপ্ন তৈরির উপকরন – 

কেন

কারন হচ্ছে আমরা যখন প্রথাগত ভাবে বই থেকে বিজ্ঞানের কোন থিওরি পড়ি এবং পরীক্কখাতে লিখি তখন মজা তো দুরের কথা, এটা আমাদের কাছে তখন একটা কমপ্লিট বিরক্তিকর জিনিস! 

কিন্তু এটাই যখন ওরা হাতে কলমে দেখছে, তখন যে আনন্দটা, সেই আনন্দের কারনে 

প্রথমত,  তার মধ্যে একটা স্বপ্ন তৈরি হবে — 

আমি একদিন বিজ্ঞানী হব! 

আমি একটা জিনিস নিজে বানাবো ! 

আমরা মনে করি একটা বিজ্ঞানের উপকরন বানানোর চাইতে অনেক বড় হচ্ছে তার মধ্যে স্বপ্ন তৈরি করে দেয়া ! 

কোন বয়সের জন্যে কোন বিজ্ঞানবাক্স বেস্ট হবে , দেখতে ভিজিট করুন –

তাই এটা আমাদের সবচেয়ে বড় টার্গেটগুলোর একটা- 

বাচ্চাদের মধ্যে ঐরকম স্বপ্ন তৈরি হোক,যে  সে এরকম  অসাধারণ সব জিনিস বানাবে, যেগুলোর মাধ্যমে সে পৃথিবীর অনেক রকম সমস্যার সমাধান করবে 

দ্বিতীয়ত হচ্ছে যে থিংকিং এর ডেপথে যাওয়া —- কারন আমি একটা জিনিস নিয়ে যত গভীর ভাবে ভাববো, গভীর ভাবে চিন্তা করবো, তত আমার ব্রেইন এক্টিভেটেড হবে । 

আমরা যা কিছু পড়ি , যেমন নিউটনের গতি সূত্র হয়তো আমাদের বাস্তবে কাজে না ও লাগতে পারে। 

 একটা কঠিন অংক সমাধান করাটা হয়তো আমাদের ডিরেক্টলি কাজে না ও লাগতে পারে। 

কিন্তু এই জিনিসগুলাই যখন আমরা গভীর ভাবে ভাবো, তখন যে আমার ব্রেইন এক্টিভেটেড হবে, ব্রেইন ম্যাচিউরড হবে, ঐটা আমার এসেট হিসেবে থাকবে ।

যেটা সারাজীবন আমাকে অসাধারণ  কাজ করতে সাহায্য করবে । 

তাই এইটাও আমাদের একটা উদ্দেশ্যের জায়গা – 

যারা আমাদের দেশের আমাদের নতুন প্রজন্ম , 

ওরা যখন বিজ্ঞানবাক্সের মধ্যে দিয়ে লার্নিং টা কে উপভোগ করবে,

 তখন যেন আগের জেনারশনের চাইতেও ব্রেইনটাকে আরো বেশি ইউজ করতে পারে পৃথিবীর কল্যানে ! 

 

159 total views, 3 views today

What People Are Saying

Facebook Comment